সভাপতি শেখ হাসিনা, সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের

203
শেখ হাসিনা - Sheikh Hasina

সভাপতি শেখ হাসিনা, সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, শীঘ্রই আসছে পূর্ণাঙ্গ কমিটি

আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে শেখ হাসিনা পুনর্নির্বাচিত হয়েছেন আর  প্রথমবারের মতো দলের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন বিদায়ী কমিটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ওবায়দুল কাদের। ২৩ অক্টোবর,   রবিবার রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিশনে অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের দু’দিনব্যাপী ২০তম জাতীয় সম্মেলনের কাউন্সিল অধিবেশনে তারা সর্বসম্মতিক্রমে নির্বাচিত হন। বিদায়ী সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামকে নতুন কমিটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য নির্বাচিত করা হয়েছে।

সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচনের পর সভাপতিমণ্ডলীর ১৪ সদস্যের নাম ঘোষণা করা হয়। তাদের মধ্যে সাতজন হলেন পুরনো কমিটির, বাকি সাতজন  নতুন যুক্ত হয়েছেন। পুরনো কমিটি থেকে নির্বাচিতরা হলেন সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, মতিয়া চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, মোহাম্মদ নাসিম, কাজী জাফরউল্ল্যাহ, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন ও অ্যাভভোকেট সাহারা খাতুন। নতুন নির্বাচিত সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য হলেন, বিদায়ী কমিটির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, দফতর সম্পাদক আব্দুল মান্নান খান, কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ড. আব্দুর রাজ্জাক, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ফারুক খান, শিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক নুরুল ইসলাম নাহিদ, রমেশ চন্দ্র সেন ও পিযুষ ভট্টাচার্য্য । পুরনো কমিটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য নূহ-উল আলম লেনিন ও সতিশ চন্দ্র রায় বাদ পড়েছেন।

পুরনো কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুবউল আলম হানিফ, ডা. দীপু মনি ও জাহাঙ্গীর কবীর নানক একই পদে পুনর্নির্বাচিত হয়েছেন। এছাড়া যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে নতুন যুক্ত হয়েছেন বিদায়ী কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য আব্দুর রহমান। কোষাধ্যক্ষ পদে এইচএন আশিকুর রহমান আবারও নির্বাচিত হন। আগামী দু-এক দিনের মধ্যেই ৮১ সদস্য আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হবে বলে জানা গেছে।

এর আগে দলীয় সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সকালে কাউন্সিল অধিবেশন শুরু হয়। মধ্যাহ্ন বিরতির পর বর্তমান কমিটি বিলুপ্ত করে নির্বাচন কমিশনের হাতে দায়িত্বভার তুলে দেওয়া হয়। এর আগে দলের ঘোষণাপত্র অনুমোদন ও গঠনতন্ত্রের প্রয়োজনীয় সংশোধনী পাস করে বিদায়ী কমিটি।

নতুন কমিটি গঠন প্রক্রিয়ায় বিদায়ী কমিটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সৈয়দা সাজেদ চৌধুরী সভাপতি হিসেবে শেখ হাসিনার নাম প্রস্তাব করলে নির্বাচন কমিশননের দায়িত্বপ্রাপ্ত অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন তার প্রতি সমর্থন জানান। এ সময়  উপস্থিত কাউন্সিলররা  তাতে সায় দেন। অন্যদিকে বিদায়ী কমিটির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম সাধারণ সম্পাদক পদে ওবায়দুল কাদেরের নাম প্রস্তাব করলে অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন তার প্রতি সমর্থন জানান।

ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ওবায়দুল কাদের দীর্ঘদিন ধরে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন। তিনি ২০০২ সালের সম্মেলনে দলের ১নম্বর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০০৯ ও ২০১২ সালে সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য নির্বাচিত হন। নোয়াখালী  থেকে নির্বাচিত এই সংসদ  সদস্য বর্তমানে সরকারের সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে আছেন।