খালেদা জিয়াকে আরো ৩ মামলায় জামিন আবেদনের অনুমতি

32

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া আরও তিন মামলায় জামিন আবেদন করার অনুমতি দিয়েছেন হাইকোর্ট। ওই তিন মামলায় খালেদা জিয়াকে গ্রেফতার দেখানো (শ্যোন অ্যারেস্ট) হয়েছে। মামলাগুলো হলো কুমিল্লায় নাশকতার অভিযোগে দায়ের করা দুই মামলা ও নড়াইলে দায়ের করা একটি মানহানি মামলা।

এই মামলায় জামিন আবেদনের অনুমতি চেয়ে হাইকোর্টের বিচারপতি এ কে এম আসাদুজ্জামান ও বিচারপতি জে বি এম হাসানের বেঞ্চে আবেদন করেন বিএনপি চেয়ারপারসনের আইনজীবীরা।আবেদনের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার খন্দকার মাহবুব হোসেন, আইনজীবী মাহবুব উদ্দিন খোকন ও জয়নাল আবেদীন। আবেদনের শুনানি শেষে হাইকোর্ট আদেশ দেন ওই তিন মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন চেয়ে আবেদন করা যাবে।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী প্যানেলের সদস্য এহসানুর রহমান বলেন, ‘আদালত জামিন আবেদনের অনুমতি দিয়েছেন। জামিন আবেদনটি আজকেই এফিডেভিট করা হবে।’২০১৫ সালের জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারিতে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে নাশকতার ঘটনায় দুটি মামলা দায়ের করা হয়েছিল। মামলা দুটিতে বেগম জিয়া অন্যতম আসামি।

মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের সংখ্যা নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য ও বঙ্গবন্ধুকে কটূক্তি করার অভিযোগে দায়েরকৃত মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে আরেকটি মামলা হয়।২০১৫ সালের ২১ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় ঢাকায় মুক্তিযোদ্ধাদের একটি সমাবেশে বেগম খালেদা জিয়া প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বাধীনতা যুদ্ধে ৩০ লক্ষ শহীদদের সংখ্যা নিয়ে বির্তক আছে বলে মন্তব্য করেন। এছাড়া একই সমাবেশে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাম উল্লেখ না করে তাকে (বঙ্গবন্ধু) ইঙ্গিত করে খালেদা জিয়া বলেন, তিনি স্বাধীনতা চাননি। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হতে চেয়েছিলেন, স্বাধীন বাংলাদেশ চাননি। তার এই বক্তব্য বিভিন্ন সংবাপত্র ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ায় প্রচার হয়।

মামলার বাদী নড়াইলের জেলা পরিষদের ১ নং ওয়ার্ড সদস্য ও নড়াগাতি থানা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রায়হান ফারুকী বাদী হয়ে ২০১৫ সালের ২৪ ডিসেম্বর খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে নড়াইল সদর আমলী আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। এই মামলায়ও খালেদা জিয়াকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত খালেদা জিয়াকে গত ১৬ মে আপিল বিভাগ জামিন দেন। তবে অন্য মামলায় তিনি গ্রেফতার থাকায় কারাগার থেকে বের হতে পারেননি।