সিলেট সিটি নির্বাচন: বিএনপির অভিযোগ ভিত্তিহীন বললো ইসি

15
নির্বাচন কমিশন

রাত পোহালেই আগামীকাল তিন সিটি নির্বাচনের ভোট। তাই নির্বাচন অনুষ্ঠানের সার্বিক প্রস্তুতি নেয়ার পাশাপাশি রাজশাহী, বরিশাল ও সিলেটে ভোটগ্রহণের সামগ্রী বিতরণ শুরু করেছে রিটার্নিং অফিস।

রাজশাহী

রাজশাহীতে রোববার বেলা ১১টা থেকে রাজশাহীর গভর্নমেন্ট ল্যাবরেটরি স্কুল মিলনায়তনে স্থাপিত রিটার্নিং অফিসারের অস্থায়ী কার্যালয় থেকে নির্বাচনী মালামাল সরবরাহ করা হচ্ছে।

রিটার্নিং অফিসার আমিরুল ইসলাম জানান, রাসিকের ৩০ ওয়ার্ডের মোট ১৩৮টি ভোট কেন্দ্রের ১ হাজার ২৬টি ভোট কক্ষের জন্য ১ হাজার ২৬টি ব্যালট বাক্স দেয়া হচ্ছে। এর মধ্যে ১৩৮টি কেন্দ্রের জন্য আরও ১টি করে অতিরিক্ত ১৩৮টি ব্যালট বক্স বরাদ্দ করা হয়েছে। পাশাপাশি ইতিমধ্যেই ৩ লাখ ১৮ হাজার ১৩৮টি ব্যালট পেপার সংশ্লিষ্ট প্রিজাইডিং অফিসারদের কাছে বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে।

এছাড়া নগরীর ২২ নম্বর ওয়ার্ডের বিবি হিন্দু একাডেমির ১টি কেন্দ্রের ২টি বুথে ইভিএম’র মাধ্যমে ভোটগ্রহণ করা হবে। ওই সব কেন্দ্রেও প্রয়োজনীয় উপকরণ বিতরণ করা হয়েছে।

রাজশাহী সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মোট ভোটার ৩ লাখ ১৮ হাজার ১৩৮ জন। নারী ভোটার ১ লাখ ৬২ হাজার ৫৩ জন এবং পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৫৬ হাজার ৮৫ জন।

নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন পাঁচজন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১৬০ জন এবং সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৫২জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এদিকে, ১৩৮টি ভোট কেন্দ্রর মধ্যে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে ১১৪ টিকে। আজ থেকে ৩১ তারিখ পর্যন্ত নির্বাচনী এলাকায় পুলিশ, এপিবিএন এবং আনসারের সমন্বয়ে মোবাইল ফোর্স ৩০টি, স্ট্রাইকিং ফোর্স ১০টি, র‌্যাবের মোবাইল টিম ৩০টি ওয়ার্ডের জন্য ৩০টি এবং প্রতি ২টি ওয়ার্ডের জন্য ১ প্লাটুন করে মোট ১৫ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে বলে জানা সহকারী রিটার্নিং অফিসার আতিয়ার রহমান।
৩০ জুলাই সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে ভোটগ্রহণ চলবে।

বরিশাল

বরিশাল সিটি করপোরেশন (বিসিসি) নির্বাচনে ভোটগ্রহণের জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন ও নির্বাচনী সামগ্রী বিতরণ শুরু হয়েছে।
রোববার দুপুর ২টা থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচনী সামগ্রী বিতরণ শুরু করেছে নির্বাচন কমিশন। কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে বিভিন্ন কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের হাতে ব্যালট বাক্স, ব্যালট পেপার, অমোচনীয় কালি, স্ট্যাম্প, প্যাড ও সিলসহ ভোটের প্রয়োজনীয় সামগ্রী তুলে দেয়া হয়।

আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ও সিটি নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. মুজিবুর রহমান বলেন, আমরা নির্বাচনের সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছি। আমরা কেন্দ্রের ভোটের মালামাল বিতরণ শুরু করেছি যা আজকের মধ্যেই সব ভোটকেন্দ্রে পৌঁছে যাবে।

তিনি জানান, ইতোমধ্যে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের সিটি করপোরেশন এলাকায় মোতায়েন করা হয়েছে। গুরুত্বপূর্ণ ভোটকেন্দ্রে ২২ জন সদস্য এবং অতিরিক্ত গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে ২৪ জন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। এর বাইরে র‌্যাব, পুলিশ, এপিবিএন ও বিজিবি নির্বাচনী মাঠে থাকবে। প্রতি দুই ওয়ার্ডে এক প্লাটুন করে বিজিবি থাকবে। প্রতিটি ওয়ার্ডে র‌্যাবের একটি করে টিম থাকবে।

বরিশাল সিটি নির্বাচনে মোট দুই লাখ ৪২ হাজার ১৬৬ জন ভোটারের মধ্যে এক লাখ ২০হজার ৭৩০ জন নারী ও এক লাখ ২১ হাজার ৪৩৬ জন পুরুষ রয়েছেন।

নির্বাচনে এবারে মেয়র পদে লড়ছেন সাতজন এবং সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৯১ জন ও সংরক্ষিত আসনে ৩৪ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

সিলেট
সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ১৩৪টি ভোটকেন্দ্রে পাঠানো হচ্ছে নির্বাচনী সরঞ্জাম।
দুপুর ১টার দিকে নগরীর মাছিমপুরস্থ আবুল মাল আব্দুল মুহিত ক্রীড়া কমপ্লেক্স থেকে দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রগুলোর নির্বাচনী কর্মকর্তারা প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম নিয়ে নিজ নিজ কেন্দ্রে রওয়ানা হয়েছেন।

এর আগে এক সংবাদ সম্মেলনে রিটার্নিং অফিসার মো. আলীমুজ্জামান বলেন, অবাধ সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন আয়োজনে আমরা প্রস্তুত। সরঞ্জাম পৌঁছানোর কাজ চলছে। যথাসময়েই তা কেন্দ্রে কেন্দ্রে পৌঁছে যাবে।

তিনি জানান, ইতিমধ্যেই আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তাদের নির্বাচনী দায়িত্বপালন শুরু করেছেন।

সোমবার অনুষ্ঠিতব্য সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোট প্রদান করবেন ৩ লাখ ২১ হাজার ৭৩২ জন ভোটার।

আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জামাতসহ ৬ জন লড়ছেন মেয়র পদে। ২৭টি ওয়ার্ডের মধ্যে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ইতিমধ্যেই ১ জন নির্বাচিত হয়েছেন। ১২৭ জন কাউন্সিলর ও ৬৪ জন নারী কাউন্সিলর প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন এই নির্বাচনে।