কওমী আলেমদের  শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ দেওয়া উচিৎঃ  মাওলানা ইস্রাফিল

কওমী আলেমদের  শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ দেওয়া উচিৎঃ  মাওলানা ইস্রাফিল

কওমী শিক্ষা ব্যাবস্থার সর্বোচ্চ স্তর দাওরায়ে হাদীসকে মাষ্টার্সের (স্নাতকোত্তর  ডিগ্রী) সমমান স্বীকৃতি দিয়ে  মন্ত্রীপরিষদে বিল পাস করায় বাংলাদেশের সফল রাষ্ট্রনায়ক বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনাকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানিয়েছেন বাংলাদেশ আওয়ামী ওলামালীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আব্দুল্লাহ আল ইস্রাফিল।

তিনি আজ এক বিবৃতিতে  বলেন, এই স্বীকৃতির মাধ্যমে বাংলাদেশের লাখো লাখো কওমী শিক্ষার্থীদেরকে দেশ ও রাষ্ট্রব্যাবস্থার সকল কার্যক্রমে গুরুত্যপুর্ণ ভুমিকা পালন করার সুযোগ করে দিয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনা কওমী শিক্ষা ব্যাবস্থার ইতিহাসের পাতায় চির অমর হয়ে থাকলেন। বাংলাদেশের জনগনের মান উন্নয়নে এবং ইসলামের সুমহান আদর্শকে আরো বেগবান করতে এটি জননেত্রী শেখ হাসিনার সুদুর প্রসারী চিন্তার  বর্হিপ্রকাশ। সেই জন্য উচিত বাংলাদেশের সর্বস্তরের কওমী আলেমগন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে তার সু সাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করে দোয়া করা। কারন ইতিপুর্বে কওমী ঘরনার কিছু সংগঠন এই কওমী সনদের স্বীকৃতির দাবী নিয়ে জামাত বিএনপির সাথে জোট করেছিলেন কিন্তু ফলাফল শুন্য হওয়ার পরও আজও অনেকেই ব্যক্তি স্বার্থের কারণে সেই জোটের বেড়াজাল থেকে বেরিয়ে আসতে পারেনি।
তিনি আরো বলেন, আলেমদের কওমী স্বীকৃতির দাবী নিয়ে দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রামের অংশ হিসেবে তৎকালীন সময়ে বাংলার শায়খুল হাদীস আল্লামা আজিজুল হক রহ. ঐতিহাসিক মুক্তাঙ্গনে  সরকারের অংশ হয়েও  ইসলামের খোলস পরিহিত জামাত এবং বিএনপির থেকে দাবী আদায় করতে না পেরে সরকার থেকে বেরিয়ে গেলেন।
অথচ আজ বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাথে কওমী ঘরনার কোন দল সরকারেও নেই  কিন্তু জননেত্রী শেখ হাসিনা দেশের  ধর্মিয় মুলধারার শিক্ষায় শিক্ষিত একটি বিশাল জনগোষ্ঠীকে তাদের এবং ধর্মীয় শিক্ষার গুরুত্ব উপলদ্ধি করে বাংলাদেশের মুলধারার শিক্ষা ব্যাবস্থার সাথে সম্পৃক্ত করেছেন।
মাওঃ আব্দুল্লাহ্ আল ইস্রাফিল আরো বলেন, বাঙ্গালী জাতির শোকের মাসে সরকারের এই ধরনের গুরুত্বপুর্ণ সিদ্ধান্ত বাংলাদেশের লক্ষ লক্ষ আলেম ওলামা ও ছাত্রদের মনে আশার সঞ্চার করেছে।
তাই অতীতের ন্যায় আগামিতেও জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকারের দেশের উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রায় ঐক্যবদ্ধভাবে পাশে থাকার আহবান জানান।