৪৮ ঘণ্টার মধ্যে মামলা প্রত্যাহারের দাবি, ইত্তেফাক বর্জনের হুঁশিয়ারি

0
12

কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে হওয়া ৫টি মামলা আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে সাধারণ শিক্ষার্থী অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ।সোমবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব দাবি তুলে ধরেন পরিষদের নেতারা।

একই সঙ্গে দৈনিক ইত্তেফাকে আন্দোলনকারী নেতাদের নিয়ে প্রকাশিত সংবাদকে ‘মিথ্যা, বানোয়াট ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত’ আখ্যায়িত করে সোমবার বিকেল ৫টার মধ্যে তা প্রত্যাহার করে ক্ষমা চাওয়ার আল্টিমেটাম দেওয়া হয়েছে। তা না করলে সারাদেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ইত্তেফাক বর্জন করা হবে বলে হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে।

জামাত-শিবির বা বিএনপির সঙ্গে আন্দোলনকারীদের কোনও ধরনের যোগসূত্র নাকচ করে দিয়েছেন তারা।

আন্দোলন চলাকালে যারা আহত হয়েছেন তাদের চিকিৎসা ব্যয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পক্ষ থেকে নেওয়ায় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান তারা।

কোটা আন্দোলনের নেতা নুর হোসেন বলেন, যখন আমাদের প্রধানমন্ত্রী আমাদের দাবি মেনে নিয়েছেন, তখন একটা কুচক্রি মহল আমাদের বিরুদ্ধে বিএনপি-জামায়াত বলে অপপ্রচার করার চেষ্টা করছে। আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাই।’, ‘আমাদের নেতৃত্ব নিয়ে বিতর্কিত করা মানে সরকারকে বিতর্কিত করা। দেশকে অস্থিতিশীল করা।’

কোটা আন্দোলনের নেতা বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্যের বাসায় হামলায় কোনো সাধারণ শিক্ষার্থী জড়িত নয়। কিন্তু একটি জাতিয় দৈনিক রিপোর্ট করেছে কেন্দ্রীয় কমিটির একজনের নেতৃত্বে হামলা হয়েছে। এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা।’

‘ ভিসির বাড়িতে হামলার সাথে জড়িতদের তাদের দ্রুত বিচারের আওতায় আনা হোক। আমরা সকল ধরনের সহযোগিতা করব। কিন্তু আমাদের বিরুদ্ধে কেউ মিথ্যা ষড়যন্ত্র করে ফাঁসানো হয় তাহলে বাংলার ছাত্র সমাজ মানবে না।’

সংবাদ সম্মেলনে কোটা সংস্কার আন্দোলনের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন বলেন, ‘আমি বর্তমান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হাজি মুহাম্মদ মহসীন হল ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি। আমার পরিবার আওয়ামী রাজনীতির সাথে জড়িত। আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে।’

পরিষদ এর যুগ্ম আহ্বায়ক ফারুক হোসেন বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে আমরা আন্দোলন থেকে সরে এসেছি। কিন্তু বাংলাদেশের একটা কুচক্রি মহল এখন আমাদের কেন্দ্রীয় কমিটির বিরুদ্ধে উঠে পড়ে লেগেছে।’

‘আজকে বাংলাদেশের একটা জাতীয় দৈনিক রিপোর্ট করেছে আমাদের কেন্দ্রীয় কমিটি নাকি বিএনপি এবং জামায়াতের সঙ্গে জড়িত। অথচ আন্দোলন শুরু হওয়ার পর থেকে আমাদের ডিটেইলস গোয়েন্দা সংস্থা নিয়ে গেছে। তারা তখন কিছু পায়নি। কিন্তু হঠাৎ করে আমাদের নেগেটিভলি উপস্থাপন করার চেষ্টা করা হচ্ছে।’

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন, যুগ্ম আহবায়ক নুরুল হক নুর, মুহাম্মদ রাশেদ খাঁন, ফারুক হোসেন প্রমুখ।