একবার মুক্তিযোদ্ধা, একবার রাজাকার সমর্থিত সরকারের অদল-বদল খেলা বন্ধ করতে হবে -ইনু

জঙ্গিমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে হলে দেশ পরিচালনায় একবার মুক্তিযোদ্ধা, একবার রাজাকার সমর্থিত সরকার -এ অদল-বদল ‘মিউজিক্যাল চেয়ার’ খেলা স্থায়ীভাবে বন্ধ করতে হবে। আর এজন্য জঙ্গি ও রাজাকারদের পৃষ্ঠপোষক, আগুনসন্ত্রাসী ও ভয়ংকর খুনীদের সিন্ডিকেটপ্রধান এবং পাকিস্তানের নব্যদালাল খালেদা জিয়াকেরাখতে হবে রাজনীতির বাইরেই। নির্বাচন ও রাজনীতির ময়দানে শুধু মুক্তিযুদ্ধের পক্ষই লড়বে, রাজাকার বা তাদের সমর্থকেরা নয়।’

শনিবার দুপুরে রাজধানীর রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন সেমিনার হলে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের জাতীয় কমিটির সভায় সভাপতির স্বাগত ভাষণে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু একথা বলেন।

জঙ্গিদমনকে এখনকার সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ বলে বর্ণনা করে ও জঙ্গির পক্ষ-বিপক্ষ নিয়ে জাসদ সভাপতি বলেন, ‘বাংলাদেশে দুর্নীতি, বৈষম্য ও দারিদ্র্যের সমস্যা থাকলেও এই মুহূর্তে রাজনীতি, সমাজ, ধর্ম, গণতন্ত্র ও উন্নয়নের জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি ও বিপদ হিসাবে দেখা দিয়েছে জঙ্গিসন্ত্রাস। জনগণকে তাই ‘জঙ্গিদমনের যুদ্ধের চশমা’ দিয়েই চলমান পরিস্থিতি দেখতে হবে। আর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জাতি যখনজঙ্গিদমনে ঐক্যবদ্ধ তখন জঙ্গি ও যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষ নিয়ে খালেদা জিয়া ও বিএনপি জঙ্গিবিরোধী জাতীয় ঐক্যের বিপরীতে অবস্থান নিয়েছে।’

এসময় জঙ্গিদের মদদ দেয়া ও গণহত্যা দিবস পালন না করার অভিযোগে বিএনপিনেত্রী খালেদা জিয়ার কঠোর সমালোচনা করে ইনু বলেন, ‘যদি বেগম জিয়া জঙ্গিপৃষ্ঠপোষকতা না করতেন তবে জঙ্গি উৎপাত কখনোই এতো বাড়তো না এবং আরো আগেই নির্মূল হতো। আর পঁচিশে মার্চ গণহত্যা দিবস পালন না করে মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতাকে অস্বীকার করে তিনি পাকিস্তানের নব্যদালালের পরিচয় দিয়েছেন। অবশ্য, রাজাকার ও জঙ্গির পক্ষ নেয়া খালেদা জিয়ার কৌশলগত অবস্থান নয়, ধারাবাহিক আদর্শগত অবস্থান।‘

তথ্যমন্ত্রী আরো বলেন, রাজাকার ও জঙ্গিসঙ্গীদের সাথে রাজনীতি ভাগবাঁটোয়ারার আপোষ বন্ধ করতে হবে। রাজাকার আর জঙ্গিসঙ্গীরা ক্ষমতার প্রতিদ্বন্দ্বী হতে পারে না, এবারের নির্বাচনেই তা চূড়ান্তভাবে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। মুক্তিযোদ্ধা এবং মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তিই রাজনীতির মাঠে থাকবে। রাজাকার আর জঙ্গিরা কখনই যাতে ক্ষমতা আর রাজনীতির প্রতিদ্বন্দ্বী হতে না পারে সেজন্য জঙ্গিদের প্রধান পৃষ্ঠপোষক ও ভয়ংকরখুনীদের  সিন্ডিকেটপ্রধান, পাকিস্তানের নব্যদালাল বেগম খালেদা জিয়াসহ অপরাধীদের ছাড় না দিয়ে বিচার করতে হবে।’

জঙ্গিদমনের সাথে সাথে দেশকে এগিয়ে নেবার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন হাসানুল হক ইনু। তিনি বলেন, থেমে থাকলে চলবেনা, জঙ্গিদমন যুদ্ধের ভেতরেই রাজনীতির দুই অংক মেলাতে হবে। এক, সংবিধান অনুযায়ী যথাসময়ে নির্বাচন অনুষ্ঠান এবং যুদ্ধাপরাধী ও আগুনসন্ত্রাসীদের বিচার করতে হবে। এবং দুই. সমৃদ্ধি ও উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখার পাশাপাশি দারিদ্র্য, বৈষম্য, দলবাজী ও দুর্নীতির অবসান করতে হবে।


হাসানুল হক ইনু’র সভাপতিত্বে সভায় দলের সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার এমপি, কার্যকরী সভাপতি এড. রবিউল আলম, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আনোয়ার হোসেন, মীর হোসাইন আখতার, ইকবাল হোসেন খান, এড. হাবিবুর রহমান শওকত, নুরুল আখতার, সহ-সভাপতি আব্দুল হাই তালুকদার, ফজলুর রহমান বাবুল, এড. শাহ জিকরুল আহমেদ, কাজী রিয়াজ, আফরোজা হক রীনা, সফি উদ্দিন মোল্লা, মোঃ শহীদুল ইসলাম, মোহর আলী চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আফজাল হোসেন খান জকি, লোকমান আহমেদ, সাখাওয়াত হোসেন রাঙ্গা, ওবায়দুর রহমান চুন্নু, শওকত রায়হান, নইমুল আহসান জুয়েল, রোকনুজ্জামান রোকন, এড. সাদিক হোসেন প্রমূখ
বক্তব্য রাখেন
 
প্রকাশক: সালেহ মোহাম্মদ রশীদ অলক
সম্পাদকঃ মাহসাব হোসাইন রনি
বার্তাকক্ষঃ ০১৭১১-৪৬০৬০১ | ই-মেইলঃ news.politicsnews24@gmail.com
 
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি