ই-টিআইএনঃ বিনামূল্যে পাবেন যেভাবে

218

ই-টিআইএনঃ বিনামূল্যে পাবেন যেভাবে

জাতীয় রাজস্ব বোর্ড TIN এর পরিবর্তে নতুন-ইটিআইএন(e-TIN) রেজিস্ট্রেশন পদ্ধতি পরিবর্তন করেছে।নব প্রবর্তিত এ পদ্ধতিতে কয়েকটি সহজ ধাপ প্রেরনের মাধ্যমে আপনি পেতে পারেন আপনার টিআইএন।

নতুন পদ্ধতিতে টিআইএন রেজিস্ট্রেশান ও রি-রেজিস্ট্রেশানের শুরুতে প্রত্যেককে অবশ্যই একাউন্ট তৈরী করতে হবে। একাউন্ট তৈরির নিয়মঃ

 www.incometax.gov.bd  ওয়েবসাইটটে পবেশ করুন।

•    হোমপজের Register বাটনে ক্লিক করলে রেজিস্ট্রেশন ফরম ওপেন হবে।
•    ফরমে প্রদান আপনার মুঠোফোন নম্বররে তাৎখনিকভাবে একটি কোড পোঁছে যাবে। পর্দাই প্রদর্শিত ডায়লগ বক্স মুঠোফোনে পে কৃত কোডটি প্রদান করুন। এবার Active বাটনে ক্লিক করলেই পর্দায় দেখতে পাবেন “Welcome to Taxpayer’s Identification Number (TIN) Registration/Re- Registration”
•    TIN Application মেন্যুতে ক্লিক করুন। এবার Registration/Re- Registration ফরমে প্রদর্শিত শূন্যস্থান পূরণ করে Go to Next  চাপুন।নূতন করদাতাগণ Registration  বাটনে এবং পুরাতন করদাতাগণ যাদের TIN  নম্বর আছে তারা Re- Registration বাটনে ক্লিক করতে হবে।
•    Basic Information  ফরমে প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে শূন্যস্থান পূরণ করুন এবং Go to Next   বাটনে ক্লিক করুন।
•     প্রাপ্তবয়স্ক ও অপ্রাপ্তবয়স্ক বাংলাদেশী নাগরিকের(যাদের জাতীয় পরিচিতি নম্বর নেই) নতুন-ইটিআইএন রেজিস্ট্রেশনের ক্ষেত্রে এ পর্যায়ে এসে ডিজিটাল ফরমেটে সদ্য তোলা এক কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি আপলোড করতে হবে।
•    Final preview  তে ফরমে প্রদর্শিত আপনার দেয়া তথ্যগুলো সঠিক আছে কিনা ,  তা শেষবারের মতো যাচাই করুন । সবকিছু ঠিক থাকলে, Final preview এর একেবারে নীচে চেক বক্সে টিক চিহ্ন দিন।
•    এরপর Submit Application  বাটনে ক্লিক করলেই রেজিস্ট্রেশন/রি-রেজিস্ট্রেশনকারী নতুন ১২ ডিজিটের টিআইএন। তবে  প্রাপ্তবয়স্ক ও অপাপ্তবয়স্ক আবেদনকারী , যার জাতীয় পরিচিতি  নম্বর নেই এবং যিনি পাসপোর্টের মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশন/রি-রেজিস্ট্রেশন করতে চান।,তিনি একটি Ticket পাবেন। Ticket প্রিন্ট করে তাতে উল্লিখিত নিয়ম অনুসরন করে টিকেটে উল্লেখিত আয়কর কার্যালয়ে যোগাযোগ করতে হবে।

অনলাইনে টিআইএন রেজিস্ট্রেশান এবং রি-রেজিস্ট্রেশানের জন্য যা প্রয়োজনঃ-

করদাতার ধরন প্রয়োজনীয় তথ্যাবলি
প্রাপ্ত বয়স্ক বাংলাদেশী নাগরিক জাতীয় পরিচিতি নম্বর/পাসপোর্ট নম্বর,পূর্বের (রি-রেজিস্ট্রেশনের ক্ষেত্রে)
অপ্রাপ্তবয়স্ক বয়স্ক বাংলাদেশী নাগরিক অভিভাবকের  ১২ ডিজিটের টিআইএন (নতুন অনুযায়ী রেজিস্ট্রেশন কৃত),সদ্য তোলা পাসপোর্ট পাসপোর্ট সাইজ ছবি,পূর্বের টিআইএন (রি-রেজিস্ট্রেশনের ক্ষেত্রে)
প্রাপ্ত বয়স্ক বিদেশি নাগরিক পাসপোর্ট নম্বর,ভিসা নম্বর, ডিজিটাল ফরম্যাটে সদ্য তোলা পাসপোর্ট সাইজ ছবি,পূর্বের টিআইএন (রি-রেজিস্ট্রেশনের ক্ষেত্রে)
অপ্রাপ্ত বয়স্ক বিদেশি নাগরিক নিজের এবং অভিভাবকের পাসপোর্ট নম্বর,ভিসা নম্বর , ডিজিটাল ফরম্যাটে সদ্য তোলা পাসপোর্ট সাইজ ছবি,পূর্বের টিআইএন (রি-রেজিস্ট্রেশনের ক্ষেত্রে)
লিমিটেড কোম্পানী কোম্পানীর ইনকর্পোরেশন নম্বর ,তারিখ পূর্বের টিআইএন (রি-রেজিস্ট্রেশনের ক্ষেত্রে)
রেজিস্টার্ড ফার্ম রেজিস্টার অব জয়েন্ট স্টক কোম্পানীজ

এন্ড ফার্মস(RJSC) এর রেজিস্ট্রেশন নম্বর,

রেজিস্ট্রেশন তারিখ ,অংশীদারিদের ১২ ডিজিটের টিআইএন (নতুন অনুযায়ী রেজিস্ট্রেশন কৃত),পূর্বের টিআইএন (রি-রেজিস্ট্রেশনের ক্ষেত্রে)

আন-রেজিস্টার্ড ফার্ম অংশীদারিদের ১২ ডিজিটের টিআইএন (নুতন পদ্ধতি অনুযায়ী রেজিস্ট্রেশানকৃত), পূর্বের টিআইএন (রি-রেজিস্ট্রেশানের ক্ষেত্রে)
ব্যক্তিসংঘ ,অবিভক্ত হিন্দু পরিবার ক্ষমতাবান ব্যক্তির  ১২ ডিজিটের টিআইএন (নতুন অনুযায়ী রেজিস্ট্রেশন কৃত),পূর্বের টিআইএন (রি-রেজিস্ট্রেশনের ক্ষেত্রে)
স্থানীয় কতৃপক্ষ, আইন দারা সৃ   কৃত্রিম

ব্যক্তিসত্ত্বা,কো-অপারেটিভ সোসাইটি এবং ধারা ২(২০) অনুযায়ী গঠিত অন্যান্য কোম্পানি ।

করদাতার প্রতিষ্ঠানের নাম , ঠিকানা ফ্যাক্স নম্বর ও এ মেইল আইডি (রেজিস্ট্রেশনক্ষেত্রে),পূর্বের টিআইএন (রি-রেজিস্ট্রেশনের ক্ষেত্রে)

সকলকে নিবন্ধন করতে হবে:

নতুন বা পুরাতন সকল করদাতাকে এই নিয়মে নতুন করে নিবন্ধন করতে হবে। আগামী ১ জানুয়ারি, ২০১৪ থেকে বর্তমান ১০ অঙ্কের টিন নাম্বার বাতিল হয়ে যাবে। তাই সকল করদাতাকে ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে নিবন্ধন করতে হবে। এজন্য প্রথমে এনবিআরের ওয়েবসাইট (www.nbr-bd.org) এ গিয়ে ই-টিআইএন লেখার ওপর ক্লিক করতে হবে। www.incometax.gov.bd ঠিকানা থেকেও এ কার্যক্রম শুরু করা যাবে। এখানে Register বাটনে ক্লিক করে প্রাথমিক নিবন্ধন করার পর Login করতে হবে। এরপর মূল নিবন্ধন বা পুনর্নিবন্ধন ফরম আসবে।  এই ফরম পূরণ করার পর একটি নিবন্ধন নাম্বার দেওয়া হবে। নিবন্ধন নম্বর দিয়ে লগ-ইন করে যেকোনো জায়গা থেকে টিআইএন দেখা ও প্রিন্ট করা যাবে। ওয়েবসাইটের User Guide থেকেও পাওয়া যাবে এ পদ্ধতির বিস্তারিত নির্দেশাবলী।

ট্যাক্স ক্যালকুলেটর:

কর বা ইনকাম ট্যাক্স হিসাব করার জন্য বিশেষ ধরনের ক্যালকুলেটর রয়েছে, এটি ট্যাক্স ক্যালকুলেটর নামে পরিচিত। বাংলাদেশি কর প্রদানকারীদের জন্য অনলাইন সফটওয়্যারের মাধ্যমে এই বিশেষ ক্যালকুলেটরটি তৈরি করা হয়েছে। এই ক্যালকুলেটরের মাধ্যমে খুব সহজেই অনলাইনে আয়কর হিসাব করা যায়। এই ক্যালকুলেটরের কিছু নির্ধারিত বক্সে প্রয়োজনীয় ডাটা বসালেই ক্যালকুলেটরটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে মোট আয় ও আয়ের ওপর প্রদেয় কর জানিয়ে দেয়। এই ক্যালকুলেটরটির মাধ্যমে কোম্পানি আয়কর ও ব্যক্তিগত আয়কর দুই ধরনের করই হিসাব করা যায়। এই ক্যালকুলেটরটির সাহায্য নিতে হলে যেতে হবে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের ওয়েবসাইট www.nbr-bd.org এ।

রাজস্ব বোর্ডের হোমপেজের নিচের দিকে মাঝামাঝি অবস্থানে লাল রঙের ব্র‌্যাকগ্রাউন্ডের মধ্যে “ট্যাক্স ক্যালকুলেটরটি” রয়েছে। অথবা সরাসরি ট্যাক্স ক্যালকুলেটরটি পেতে চাইলে এই লিংকটি www.nbrtaxcalculatorbd.org ব্যবহার করতে পারেন।

ট্যাক্স ক্যালকুলেটর পেজটি ওপেন হওয়ার পর “ইনকাম ট্যাক্স ক্যালকুলেটর” ও “ইনকাম ট্যাক্স রিটার্ন প্রিপারেশন” নামে আলাদা আলাদা দুটি অপশন রয়েছে। “ইনকাম ট্যাক্স রিটার্ন প্রিপারেশন” মূলত ক্যালকুলেটরটির একটি বর্ধিত রূপ। এটির মাধ্যমে কর হিসাব করার সাথে সাথে নির্ভুল রিটার্ন তৈরি করা যায়।

“ইনকাম ট্যাক্স ক্যালকুলেটর” পেজটিতে কোম্পানি আয়কর ও ব্যক্তিগত আয়কর হিসাব করার আলাদা আলাদা ক্যালকুলেটর রয়েছে। পেজটি ওপেন হলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ব্যক্তিগত ট্যাক্স হিসাব করার ক্যালকুলেটরটি সিলেক্ট করা থাকে। পেজটির বাম পাশে কোম্পানি আয়কর হিসাব করার ক্যালকুলেটরের অপশনটি রয়েছে।

ব্যক্তি আয়কর হিসাব করতে চাইলে ওIndividual Tax Calculator এবং প্রতিষ্ঠানের আয়কর হিসাব করতে চাইলে Company Tax Calculator নির্বাচন করতে হবে। এরপর প্রাথমিক তথ্য, যেমন- নাম, জন্ম তারিখ, টিআইএন ইত্যাদি ঘর পূরণ করতে হবে।

ব্যক্তি আয়করের ক্যালকুলেটরের ছকে ৯টি খাত রয়েছে। এগুলো হলো বেতন, সিকিউরিটি সুদ, বাড়িভাড়া, কৃষি, ব্যবসা বা পেশা, ব্যবসায়ী উদ্যোক্তা হিসেবে প্রাপ্ত লভ্যাংশ, স্বামী-স্ত্রী ও সন্তানের আয়, মূলধনী মুনাফা ও অন্যান্য খাতের আয়। প্রতিটি খাতে বার্ষিক আয়ের পরিমাণ বসানোর পর নিচের Total Income ও Tax Leviable Total Income ঘরে স্বয়ংক্রিয়ভাবে মোট আয় ও তার ওপর প্রদেয় আয়কর চলে আসবে। এসব আয়ের মধ্যে কোনো কর রেয়াত থাকলে তা স্বয়ংক্রিয়ভাবে বাদ হয়ে যাবে। যেমন- পেনশনের আয় করমুক্ত হওয়ায় এর ওপর কর দিতে হবে না। এ ছাড়া বিনিয়োগজনিত আয়কর রেয়াতের পরিমাণ জানতে চাইলে Investments ঘরে বিনিয়োগের পরিমাণ উল্লেখ করতে হবে। কোম্পানির বার্ষিক আয় ও আয়কর হিসাব করতে চাইলে এর জন্য নির্ধারিত ফরমটি পূরণ করতে হবে। এরপর সফটওয়্যার স্বয়ংক্রিয়ভাবে জানিয়ে দেবে মোট আয় ও তার ওপর প্রদেয় কর। হিসাব-নিকাশ শেষ করার পর Print-এ ক্লিক করে নিয়ে রিটার্নের সঙ্গে এটি সংযুক্ত করতে হবে।

আয়কর হিসাবের পাশাপাশি যদি অনলাইনে রিটার্নও প্রস্তুত করতে চান, তাহলে আপনাকে নিবন্ধিত ইউজার হতে হবে। এ জন্য সাইটের হোম পেইজ থেকে নিবন্ধন করে লগ-ইন করুন। এবার রিটার্ন প্রিপারেশনের পৃষ্ঠা দেখতে পাবেন। এগুলো পূরণ করে Save বাটনে ক্লিক করে পরবর্তী সময় সংশোধন বা পরিমার্জনের জন্য সংরক্ষণ করে রাখতে পারবেন। করদাতাদের চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে ক্যালকুলেটরটি নিয়মিত আপগ্রেড করা হয়।

ভ্যালু অ্যাডেড ট্যাক্স/মূল্য সংযোজন কর (মূসক):

মূসক-বিষয়ক পেইটিতে রাজস্ব প্রদানকারীরা মূল্য সংযোজন কর সম্পর্কিত বিভিন্ন তথ্য পাবেন যেগুলো তাদেরকে উক্ত খাতে রাজস্ব দিতে বিশেষভাবে সহায়তা করবে। এখানে বিভিন্ন পণ্য এবং সেবার উপর প্রযোজ্য মূসকের হার সম্পর্কে তথ্য রয়েছে। পাশাপাশি কোন কোন পণ্য মূসকের আওতায় পড়বে না সেসব বিষয়েও তথ্য দেয়া রয়েছে।

এই ব্যবস্থাটি বিংশ শতাব্দীতে উদ্ভাবিত একটি আধুনিক কর যা যেকোনো ব্যবসায়ের মাধ্যমে সৃষ্ট মূল্য সংযোজনের ওপর আরোপ করা হয়ে থাকে। দেশীয় পণ্য উৎপাদন, বিপণন ও বিক্রয়, বিদেশী পণ্য আমদানী ও রপ্তানী, দেশের অভ্যন্তরে সেবা বা পরিসেবার উৎপাদন, বিপণন ও বিক্রয় ইত্যাদি সকল ক্ষেত্রে মূল্য রপ্তানী কর আরোপযোগ্য। এই কর উৎপাদন থেকে খুচরা বিক্রয় পর্যন্ত বিভিন্ন স্তরে আরোপ ও আদায় করা হলেও এর দায়ভার চূড়ান্তভাবে কেবল পণ্য বা সেবার ভোক্তাকে বহন করতে হয়।

যেসকল পণ্যের উপর মূসক প্রদান করতে হয়:

আবাসিক হোটেল

রেস্তোরাঁ

ডেকোরেটর ও ক্যাটারার্স

কমিউনিটি সেন্টার

মিষ্টান্ন ভান্ডার

বিউটি পার্লার

পণ্যাগার ও বন্দর

শিপিং এজেন্ট

ফ্রেইট ফরোয়ার্ডার্স

ইনডেন্টিং সংস্থা

বীমা কোম্পানি

বিদ্যুৎ বিতরণকারী

ওয়াসা

আইন পরামর্শক

ইমিগ্রেশন উপদেষ্টা

যান্ত্রিক লন্ড্রি

বিজ্ঞাপনী সংস্থা

ছাপাখানা

জরিপ সংস্থা

নিলামকারী সংস্থা

মানি চেঞ্জার

পরিবহন ঠিকাদার

খেলাধুলা আয়োজক

অনুষ্ঠান আয়োজক

নির্মাণ সংস্থা

যোগানদার

হেলথ ক্লাব ও ফিটনেস সেন্টার

কোচিং সেন্টার

স্যাটেলাইট ক্যাবল অপারেটর

স্যাটেলাইট চ্যানেল ডিস্ট্রিবিউটর

কুরিয়ার ও এক্সপ্রেস মেইল সার্ভিস

অডিট ও একাউন্টিং ফার্ম

ইঞ্জিনিয়ারিং ফার্ম

চলচ্চিত্র স্টুডিও

চলচ্চিত্র প্রদর্শক (প্রেক্ষাগৃহ)

স্বয়ংক্রিয় বা যন্ত্রচালিত করাতকল

আসবাবপত্রের বিপণন কেন্দ্র

সিকিউরিটি সার্ভিস

গ্লাসশীট প্রলেপকারী প্রতিষ্ঠান

নিলামকৃত পণ্যের ক্রেতা

স্থান ও স্থাপনা ভাড়া গ্রহণকারী

যানবাহন ভাড়া প্রদানকারী

লটারীর টিকিট বিক্রয়কারী

এ্যামিউজমেন্ট পার্ক ও থিম পার্ক

পিকনিক স্পট, শ্যুটিং স্পট ও পর্যটন স্থান

সিম কার্ড সরবরাহকারী

গ্রাফিক ডিজাইনার

ইজারাদার

মেরামত বা সার্ভিসিং প্রতিষ্ঠান

তথ্য প্রযুক্তি নির্ভর সেবা

শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত টেইলারিং সপ ও টেইলার্স

টেলিফোন, টেলিপ্রিন্টার, টেলেক্স, ফ্র‌্যাক্স বা ইন্টারনেট সংস্থা

শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত বাস, লঞ্চ ও রেলওয়ে সার্ভিস

মোটর গাড়ির গ্যারেজ, ওয়ার্কশপ এবং ডকইয়ার্ড

ভূমি উন্নয়ন সংস্থা ও ভবন নির্মাণ সংস্থা

ব্যাংকিং ও সম ব্যাংকিং সেবা প্রদানকারী

ক্রেডিট কার্ড প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান

মানব সম্পদ সরবরাহ বা ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠান

বোর্ড সভায় যোগদানকারী

ফটো নির্মাতা (রঙিন ও সাদাকালো)

কনসালটেন্সী ফার্ম ও সুপারভাইজরী ফার্ম

উপগ্রহ চ্যানেলের মাধ্যমে বিজ্ঞাপন প্রচারকারী

আর্কিটেক্ট, ইন্টেরিয়র ডিজাইনার/ইন্টেরিয়র ডেকোরেটর

শব্দ ও আলোক সরঞ্জাম ভাড়া প্রদানকারী

প্ল্যান্ট বা মূলধনী যন্ত্রপাতি ভাড়া প্রদানকারী সংস্থা

নিজস্ব ব্র‌্যান্ড সম্বলিত তৈরী পোশাক বিপণন কেন্দ্র

বিদেশী শিল্পী সহযোগে বিনোদনমূলক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজক

চাটার্ড বিমান বা হেলিকপ্টার ভাড়া প্রদানকারী সংস্থা

স্বর্ণকার, রৌপ্যকার এবং স্বর্ণ ও রৌপ্যের দোকানদার এবং স্বর্ণ ও রৌপ্যের পাকাকারী

ভিডিও ক্যাসেট সপ, ভিডিও গেম সপ, ভিডিও অডিও রেকর্ডিং সপ, ভিডিও ও অডিও সিডি ভাড়া প্রদানকারী সপ

অন্যান্য সেবা যা মূল্য সংযোজন কর আইনের দ্বিতীয় তফসিল দ্বারা অব্যাহতিপ্রাপ্ত নয়

 

তথ্যসূত্রঃ অনলাইনঢাকা